নামাজের ওয়াজিব কয়টি | নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি | [click here]

ওয়াজিব শব্দের আভিধানিক অর্থ হল বাধ্যতামূলক, অবশ্য কর্তব্য। আজকে আমরা জানব নামাজের ওয়াজিব কয়টি ,নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি সম্পর্কে। বিস্তারিত জানতে সম্পূর্ণ পোস্টটি ধৈর্য সহকারে পড়ুন। আসা করি নামাজের ওয়াজিব কয়টি ,নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি সম্পর্কে সঠিক ধারনা পাবেন ইনশাল্লাহ।

নামাজের ওয়াজিব কয়টি

সালাত আরবি শব্দ। সালাত শব্দের অর্থ  হল দোয়া করা ,প্রার্থনা করা । সালাত শব্দের বাংলা প্রতিশব্দ হল নামাজ। আমাদের ইসলামের মৌলিক স্তম্ভ মোট পাঁচটি। কালিমা,  নামাজ,  রোজা,  হজ্জ, যাকাত ইত্যাদি। তাই নামাজের গুরুত্ব ইসলামে অনেক। বলা হয়েছে নামাজ হল জান্নাতের চাবিকাঠি। তাই নামাজের শুদ্ধতা বজায় রাখা জরুরি। আর শুদ্ধতা করতে হলে পূর্ণাঙ্গভাবে নামাজ সম্পর্কে জানতে হবে। আজকে আমরা সবকিছু বিস্তারিত জানব ইনশাল্লাহ।



নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি

নামাজের ওয়াজিব কয়টি যারা জানেন না তাদের প্রথমেই বলে দেই নামাজের ওয়াজিব ১৪ টি। এখন আমরা জানবো নামাজের ওয়াজিব গুলো কি কি এবং আরো জানবো নামাজের মধ্যে অয়াজিব ছুটে গেলে করণীয় কি।নামাজের ওয়াজিব কয়টি নামাজের ওয়াজিব গুলো কি কি জানা প্রতিটি মুসলমানের জন্য জরুরি। আমরা যদি না জানি নামাজের মধ্যে নামাজের ওয়াজিব কয়টি নামাজের ফরজ কয়টি এবং নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি তাহলে আমাদের নামাজ শুদ্ধ হবে না। নামাজ শুদ্ধ না  হলে ইস্লামের মৌলিক স্তম্ভগুলোর একটিকে অমান্য করা হবে। যা গুনাহের কাজ। এঁর পরিনতি খুব ভয়াবহ।

জানুনঃ        নামাজের ফরজ কয়টি

নামাজের ওয়াজিব কতটি

নামাজের ওয়াজিব কয়টি তা আমরা পূর্বে জেনে এসেছি তা হল নামাজের ওয়াজিবসমূহ মোট ১৪ টি। এখন আমরা বিস্তারিত জানব। সাথেই থাকুন।নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি তা নিয়ে এবারের আলোচনা।


১।সুরা ফতিহা পড়া( সম্পূর্ণ)

নামাজের সরবপ্রথম ওয়াজিব হল সুরা ফাতিহা পড়া। নামাজের প্রত্যেক রাকাতে সুরা ফাতিহা পড়া ওয়াজিব। 
(বুখারি, হাদিস -৭৫৬)

২।সুরা ফাতিহার সাথে অন্য যেকোনো সুরা মিলিয়ে পড়া

প্রত্যেক রাকায়াত  নামাজের সুরা ফাতিহার পর অন্য সুরা মিলিয়ে পড়া অর্থাৎ কিরাত পড়া নামাজের ওয়াজিব। নামাজের ওয়াজিব সমূহ এঁর মধ্যে  এতিও খুব গুরুত্তপুরন । সুরা ফাতিহা পড়ে প্রথম রাকাতে যে সুরা পরবেন পরের রাকাতে সেই সুরার পরের যেকোনো সুরা পড়া উত্তম। অর্থাৎ কুরআন শরিফের সুরার ক্রমিক নম্বর মেনে চলা উত্তম।
এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে কমপক্ষে তিন আয়াত পরিমাণ তিলাওয়াত  অথবা এমন একটি বড় আয়াত যেটি ছোট তিন আয়াতের সমপরিমাণ তা পাঠ করতে হবে।
(বুখারী শরীফ, হাদীস নং-৭৭৬, মুসলিম, হাদীস নং-৪৫১)

৩।রুকু এবং সেজদায় দেরি করা

রুকু হতে সোজা হয়ে দাঁড়ানো, নামাজের ওয়াজিব এর মধ্যে এটি একটি  অর্থাৎ রুকু এবং দুই সিজদার মধ্যবর্তী সময়ের কমপক্ষে এক তাসবিহ পরিমাণ স্থির থাকা, যাতে শরীরের প্রতিটি অঙ্গ যথাস্থানে পৌঁছায়। রুকুতে "সুবহানা রব্বিয়াল আজিম" এবং সিজদাহতে "সুবহানা রব্বিয়াল আলা" পরতে হয় । আপনি তিনবার , পাচবার ,সাতবার পরতে পারেন। 

৫।রুকু হতে সোজা হয়ে দাঁড়ানো

৬।দুই সিজদাহর মাঝে সোজা হয়ে বসা

দুই সিজদাহের মাঝে সোজা হয়ে বসা নামাজের ওয়াজিব সমূহ এঁর মধ্যে একটি।দুই সিজদার মধ্যবর্তী সময়ের কমপক্ষে এক তাসবিহ পরিমাণ স্থির থাকা, যাতে শরীরের প্রতিটি অঙ্গ যথাস্থানে পৌঁছায় খেয়াল রাখতে হবে। অনেকেই এইখানে স্থির থাকি না যা অয়াজিবের খেলাফ। 

৭। প্রথম বৈঠক

তিন ও চার রাকাত নামাজের ক্ষেত্রে প্রথম দুই রাকায়াত পর প্রথম বৈঠক দিতে হবে। এখানে আমরা আত্তাহিয়াতু পরব। জারা তাসাহুদ বা  আত্তাহিয়াতু জানেন না জেনে নিবেন।

আত্তাহিয়াতু | তাসাহুদ কি | তাসাহুদ বাংলা উচ্চারন 

আত্তাহিয়্যাতু লিল্লাহি ওয়াস-সালাওয়াতু ওয়াত-ত্বায়্যিবাতু;আস-সালামু আলাইকা আইয়্যুহান নাবিয়্যু ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ ,  আসসালামু আলাইনা ওয়া আলা ইবাদিল্লাহিছ ছালিহীন, আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু।


নামাজের ওয়াজিব কয়টি ও কি কি 

৮। প্রত্যেক বৈঠকে আত্তাহিয়াতু পড়া

৯।  নামাজে কেরাত আস্তে এবং জোরে পড়া

এটি আরেকটি ওয়াজিব। এটি আমাদের বুজতে হবে যে জামাতে নামাজের ক্ষেত্রে ফজর, মাগরিব এবং এশার নামাজে প্রথম দুই রাকাআত ইমামের জন্য উচ্চস্বরে কিরাআত পড়া এবং  যোহর এবং আসর নামাজের মধ্যে ইমাম ও একাকি নামাজির অনুচ্চ শব্দে কিরাআত পড়া ওয়াজিব। 

১০। বিতরের নামাজে দোয়ায়ে কুনুত পড়া

বেতের নামাজের নিয়ম  

লিঙ্কে ক্লিক করে নিচের দিকে দেখুণ আসা করি আপনার চাহিদা অনুযায়ী আপনার উত্তর পেয়ে জাবেন।



১১।দুই ঈদের নামাজে ৬ টি করে তাকবীর বলা

ঈদের নামাজের ক্ষেত্রে ৬টি অতিরিক্ত তাকবীর বলা। ঈদের নামাজে প্রথম রাকাতে তিনটি অতিরিক্ত তাকবীর এবং দ্বিতীয় রাকাতে আরো তিনটি অতিরিক্ত তাকবীরের সাথে সালাত আদায় করা ওয়াজিব। 

১২।ফরজ নামাযের প্রথম দুই রাকাতকে কেরাতের জন্য নির্ধারিত করা

১৩। প্রত্যেক রাকাতের ফরজ গুলোর তরতীব ঠিক রাখা

১৪। প্রত্যেক রাকাতের ওয়াজিব গুলোর তরতীব ঠিক রাখা

FAQ
 প্রশ্নঃ- নামাজের ওয়াজিব কতটি?

উত্তরঃ- নামাজের মধ্যে মোট ১৪টি ওয়াজিব রয়েছে যদি এর কোনোটি নামাজের মধ্যে ছুটে যায় তাহলে সাহু সিজদা করতে হবে।



Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url
Post-by: Admin-Sobnews