বেতের নামাজের নিয়ম | দোয়া কুনুত ...

আচ্ছালামু আলাইকুম।বিতর শব্দটি আরবি "আল-বিতরু" শব্দ থেকে এসেছে। আজকে আমরা বেতের নামাজের নিয়ম , তাহাজ্জুত নামাজের নিয়ম, তাহাজ্জুত নামাজ কর রাকাত এবং এশার  বেতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে জানব।বিস্তারিত জানতে সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন।আসা করি আপনার কাঙ্ক্ষিত প্রশ্নের উত্তর সহজভাবে পেয়ে জাবেন ইনশাল্লাহ।

বেতের নামাজের নিয়ম

ইশার নামাজে ফরজ সুন্নত শেষে যে তিন রাকাত নামাজ পড়া হয় তাকেই সালাতুল বিতর বা বেতের নামাজ বলে। আজকে আমরা বেতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত জানব।অনেকেই জানি না এশার বেতের নামাজের নিয়ম অনুযায়ী বেতের নামাজ ওয়াজিব নাকি সুন্নত নাকি নফল। তাদের উদ্দেশে বলছি বেতের নামাজ ওয়াজিব।

বেতের নামাজের নিয়ম | এশার বেতের নামাজের নিয়ম | দোয়া কুনুত



এশার বেতের নামাজের নিয়ম

আমরা জানলাম যে বেতের নামাজ একটি ওয়াজিব নামাজ।ওয়াজিব মানে আমাদের সকলেরই জানা। অর্থাৎ অবসশই পালন করতে হবে। কারন আমরা জানি ফরজ নামাজের পরেই ওয়াজিব নামাজের অবস্থান। এখন আমরা বেতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত জনব ইনশাল্লাহ। 

বেতের নামাজ পড়ার নিয়ম

আমাদের মাঝে অনেকেই আছি যারা এখনও বেতের নামাজের নিয়ম সম্পকে জানি না। বেতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে না জানলে আপনার আমার নামাজ শুদ্ধ হবে না ভাই আমার। 
  • প্রথমে নিয়ত করে তাকবিরে তাহরিমা বাধতে হবে আল্পলাহু আকবার বলে।
  •  সুরা ফাতিহা পড়ে যেকোনো সুরা মিলিয়ে রুকুতে জেতে হবে। রুকুতে "সুবহানাল্লাহি রব্বিয়াল আজিম" বলতে হবে।আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী তিনবার পাচবার সাতবার পরতে পারবেন।
  • রুকু থেকে সোজা হয় দাঁড়িয়ে " রব্বানা নাকাল হামদ" বলা উত্তম। তারপর সিজদাহ করতে হবে। সিজদাহে "সুবহানাল্লাহি রব্বিয়াল আলা" বলতে হবে। আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী তিনবার পাচবার সাতবার পরতে পারবেন। 
  • এবার আবার সোজা হয় দাঁড়িয়ে প্রথম রাকাত নামাজ শেষ করতে হবে। 

নামাজের মধ্যে ফরজ কাজগুলো কিকি [ক্লিক করে জানুন]

নামাজের মধ্যে ওয়াজিব কাজগুলো কি কি জানুন

বেতের নামাজের নিয়ম

দ্বিতীয় রাকাতে প্রথম রাকাতের ন্যায় সুরাতুল ফাতিহা পড়ে অন্য যেকোনো সুরা মিলিয়ে স্বাভাবিকভাবে রুকুতে জেতে হবে। রুকুতে রুকুর তাজবিহ , সেজদাহতে সেজদাহের তাজবিহ পড়ে প্রথম বৈঠকে বস্তে হবে। হাদিস শরিফ্বে আসছেঃ

 সাদ ইবনে হিশাম (রহ.) বর্ণনা করেন, আয়েশা (রা.) তাকে বলেছেন, রাসুল (সা.) বিতরের দুই রাকাতে সালাম ফেরাতেন না। (সুনানে নাসায়ি ১/২৪৮; হাদিস ১৬৯৮) 

  • প্রথম বৈঠকে তাসাহুদ বা আত্তাহিয়াতু পরতে হব।যারা আত্তাহিয়াতু বা দোয়া কুনুত পারেন না শিখে নিবেন । তব ছাইলে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করে পড়ে নিতে পারবেন এক্তু খেয়াল করলে।

বেতের নামাজের নিয়ম

তৃতীয় রাকাতেই সবার ভুলটি হয়। আসুন বিস্তারিত জেনে নিই। কিভাবে সঠিক পদ্দতিতে এশার বেতের নামাজ আদায় করবেন। 
  • প্রথমে আমরা সুরা ফাতিহা পরব তারপর যেকোনো সুরা মিলিয়ে পরব। আল্লাহু আকবার বলে অতিরিক্ত আর একটি  তাকবির দিব এবং হাত বেধে নিব।
  • তারপর আমরা দুয়া কুনুত পড়ে রুকু সেজদাহ করে শেষ বৈঠকে বসে যাব। শেষ বৈঠকে আমরা  তাসাহহুদ  , দরূদ শরিফ , দুয়া মাসুরা পড়ে সালাম ফিরিয়ে নিয়ে আমাদের ৩ রাকায়াত বেতের ওয়াজিব সালাত শেষ করব।

দোয়া কুনুত 

আমাদের মাঝে এখনও অনেকে আছি যারা এখনও দয়া কুনুত জানি না । আসুন জেনে নেই দোয়া কুনুত  এর বাংলা উচ্চারণ 


আল্লাহুম্মা ইন্না নাসতা’ইনুকা 

ওয়া নাসতাগফিরুকা

ওয়া নু”মিনুবিকা

ওয়া নাতাওয়াক্কালু ’আলাইকা

ওয়া নুছনি ’আলাইকাল খাইর

ওয়া নাশকুরুকা

ওয়া লাা নাকফুরুকা

ওয়া নাখলায়ু

 ওয়া নাতরুকু মাইয়াফজুরুকা

আল্লাহুম্মা ইয়্যাকা না’য়্ বুদু

ওয়া লাকা নুসাল্লী

ওয়া নাসজুদু

ওয়া ইলাইকা নাস’য়া

ওয়া নাহ্ফিদু

ওয়া নারজুউ রাহ্ মাতাকা

ওয়া নাখ্ শাা ‘আযাবাকা

ইন্না ‘আযাবাকা বিলকুফফারি মুলহিক্ব

বেতের নামাজে দোয়া কুনুত না পারলে করণীয় 

আমরা অনেকেই আছি বেতের নামাজের নিয়ম জানি না। কিভাবে দোয়া কুনুত পরতে হয় তাও জানিনা অনেকে। কিন্তু আমাদের ইসলাম ধর্ম অনেক সহজ। এখনে মুসলমানদের ওপর আল্লাহ কোন কিছু চাপিয়ে দেন নি। বরং সহজ করে দিয়েছেন। আমাদের জ্ঞান আছে কিন্তু তা দিয়ে জানার চেষ্টা করি না পর্যন্ত। তাই জানব

দোয়া কুনুত না পারলে অবশ্যই শিখে নিতে হবে। নয়ত নামাজ হবেনা। তবে না শিখা পর্যন্ত আল্লাহর প্রশংসা মুলক বাক্য পরতে পারবেন। যেমন 

রাব্বানা আতিনা ফিদ্দুনিয়া হাসানতাও ওয়াফিল আখিরাতি হাসানাতাও ওয়াকিনা আযাবান নার।

এতিও না পারলে সুরা ইখলাস পরতে পারবেন। তবে মনে রাখতে হবে সুরা ইখলাস বা অন্য কিছু দিয়ে নামাজ পড়া আজিবন চালিয়ে জাউয়া বেতের নামাজের নিয়ম  এ নেই। তাই যত তারাতারি সম্ভব আমাদের দোয়া কুনুত সিখে নিতে হবে। যা আমাদের বেতের নামাজকে শুদ্ধ করে তুল্বে ইনশাল্লাহ। 




Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url
Post-by: Admin-Sobnews